Home / অপরাধ / ১ সন্তানের জননীকে শ্বাসরোদ্ধ করে পেট্রোল ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে দেহ ছাই

১ সন্তানের জননীকে শ্বাসরোদ্ধ করে পেট্রোল ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে দেহ ছাই


Print Friendly, PDF & Email

নিউজ হবিগঞ্জ মতিউর রহমান মুন্না, নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার খাগাউড়া রইছগঞ্জ বাজার সংলগ্ন লোকমান মিয়া বার্বুচির বাড়ি থেকে গতকাল শনিবার সকালে পুত্রবধু রেফা বেগম (২২)কে শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। লোমহর্ষক এ ঘটনার  খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিকৃত অবস্থায় এক সন্তানের জননী গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে। এ সময় ঘটনার সাথে জড়িতের সন্দেহে পুলিশ স্বামী রায়হান, সৎ শাশুড়ী আছিয়া বেগমসহ ৪ জনকে আটক করেছে। নির্মম এই হত্যাকান্ডের ঘটনার খবর পেয়ে এলাকায় চলছে শোকের মাতম, হাজার হাজার জনতা ওই বাড়িতে ভীড় জমান। উপস্থিত শোকার্ত উত্তেজিত জনতা গৃহবধু রেফা হত্যাকান্ডের ঘটনায় ঘাতকদের ফাসিঁ দাবী করেন।এলাকাবাসী সুত্রে জানাযায়, উপজেলার পানিউন্দা ইউনিয়নের খাগাউড়া গ্রামের লোকমান মিয়া র্বাবুচি’র ছেলে সহজ সরল রায়হান মিয়া প্রায় ৪/৫ বছর পুর্বে বিয়ে করেন একই গ্রামের গেদন মিয়ার ষোড়শী মেয়ে রেফা বেগমকে। বিয়ের পরে তাদের আরমান মিয়া নামক দু’ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। সুন্দর ভাবেই চলছিল তাদের সংসার। কিন্তু তা সহ্য করতে পারেনি বিমাতা আছিয়া বেগম। রায়হানের মা গলায় ফাস লাগিয়ে আত্মহত্যা করার পর র্বাবুচি লোকমান মিয়া বাড়ির কাজের বুয়া আছিয়া বেগমকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। আছিয়া বেগমের পুর্বের সংসারের ২টি ছেলে রয়েছে। এলাকাবাসী জানান, রায়হান মিয়া গ্রামের সহজ সরল হাবাবোবা ছেলে। লোকমান মিয়ার অঢেল সম্পত্তি থাকায় আছিয়া বেগমের লোলপ দৃষ্টি পড়ে ওই সম্পত্তিতে। সে কারনেই রায়হান মিয়াকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র শুরু করে। আর সেই ষড়যন্ত্রের বলি গৃহবধু রেফা বেগম। নাম অপ্রকাশের শর্তে গ্রামবাসী জানান, এ সব ষড়যন্ত্রের কথা লোকমান মিয়া জানতেন না। তিনি শুক্রবার সিলেটে অবস্থান করার সুযোগে গভীর রাতে রায়হানের বিমাতা আছিয়া বেগম তার পুর্বের সংসারের ছেলেদের সহযোগিতায় পরিকল্পিতভাবে রেফা বেগমকে হত্যা করা হয়েছে। অপর একটি সুত্রে জানাগেছে, বেশ কিছুদিন ধরে বউ ও সৎ শাশুড়ী এবং স্বামী রায়হানের মধ্যে পারিবারিক কলহ দেখা দেয়। গত শুক্রবার রাতে বিয়ের স্বর্ণালংকার নিয়ে বাকতিন্ডার সুত্রধরে পরিকল্পিতভাবে গৃহবধু রেফা বেগমকে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, মৃতের মাথায় আঘাতের চি‎হ্ন রয়েছে এবং গলায় কাপড় পেছানো ছিল। এতে ধারা করা যাচ্ছে, সৎ শাশুড়ী আছিয়া বেগম, তার পুর্বের সংসারের সন্তানরা মিলে প্রথমে ঘুমন্ত রেফা বেগমকে শ্বাসরোদ্ধ করে হত্যা করে। পরে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে এবং আত্মহত্যা বলে চালিয়ে যাওয়ার অপচেষ্টা করার কারনেই শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে মৃতের চেহারাটি ছিল সম্পুর্ণ বিবস্ত্র ও বিকৃত। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে স্বামী রায়হান মিয়া, তার সৎ মা আছিয়া বেগম, সৎ ভাই আছাদ মিয়া ও বোন হেলেনা বেগমকে আটক করেছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনার খবর পেয়ে হবিগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ নাজমুল ইসলাম, ওসি মোঃ লিয়াকত আলী ও গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রর ইনর্চাজ আরিফ উল্লাসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরন করেছে। এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে জানাগেছে, পারিবারিক কলহের জের ধরেই এই নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনাটি সংঘঠিত হয়েছে। তবে সুষ্ট তদন্তেই আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে। অপরাধী যেই হোক আইনের আওতায় এনে তার বিচার করা হবে।  এ ঘটনায় নিহতের ভাই হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে।

Share