Home / অর্থনীতি / লাখাই উপজেলার হাটবাজার গুলি বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত॥

লাখাই উপজেলার হাটবাজার গুলি বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত॥


Print Friendly, PDF & Email

মহসিন সাদেক লাখাই থেকেঃ লাখাই উপজেলার প্রধান প্রধান হাটবাজার গুলি র্দীঘদিন যাবত বিভিন্ন সমস্যায় জরজড়িত। প্রতিটি বাজার থেকে সরকার প্রতি বছল লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব  পেয়ে থাকলেও হাট বাজার গুলোতে আগত ক্রেতা বিক্রেতাদের সমস্য নিরসনে উল্লেখ যোগ্য কোন অগ্রগতি লক্ষ্য করা যায়নি । লাখাই মোট ৬টি হাটবাজারের মধ্যে মাদনা বাজারে কোন গনশৌচাগার না থাকায় ক্রেতা সাধারনের ভোগান্তি চরমে।তাছাড়া বাজার গুলোতে বিশুদ্ধ পানির ও রয়েছে অপ্রতুল্যতা। বাজারের ড্রেনেজ ব্যবস্থার ও বেহাল দশা।ড্রেন নির্মানের জন্য অর্থবরাদ্দ হলেও অধ্যবধি তা নির্মান হয়নি বলে সুত্রে যানা যায়।
উপজেলার মুড়াকরি বাজাওে কোন ফিস শেট না থাকায় মৎস ব্যবসায়ীদের পোহাতে হয় নানা ভোগান্তি। বাজারের অলিগলি গুলো অপ্রস্থ বিধায় যানজট নিত্য নৈমত্তিক ব্যপার । এ বাজাওে কোন গন শৌচাগার ও সুপেয় পানি পানের ব্যবস্থাও নেই।
লাখাই বাজারে পশ্চিম পার্শে¦ প্রতিরক্ষা দেয়াল টি অত্যন্ত ঝুকিপুর্ন হয়ে পড়েছে। এদিকে বামৈ বড় বাজারে কোন গন শৌচাগার ও বিশুদ্ধ পানি পানের ব্যবস্থা নেই।
লাখাই অন্যতম ক্রম বর্ধমান বুল্লাবাজার ও নান সমস্যায় র্জজরিত ।বাজারের এক মাত্র গনশৌচাগার টির অবস্থা অত্যান্ত নাজুক।বাজারের পশ্চিম পার্শে সুতাং নদীর তীরবর্ত স্থানের প্রতিরক্ষা দেয়াল না থাকায় বাজারের একাশং নদী গর্ভে বিলিন হওয়ার উপক্রম দেখা দিয়ছে।বাজারের পুর্ব পার্শ্বে শাহ বায়েজিদ (রা) মাজার রোডে পার্শ্বে প্রয়োজন মাফিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় রাস্থা সহ সবজ্বি বাজার টি সমান্য বৃষ্টি হলেই জলদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে যায় ফলে ক্রেতা সাধারন পরে চরম ভোগান্তিতে।বাজারের উত্তর পার্শ্বে উইম্যন কনাওে উত্তর পাশ্র্¦ে মাটি না থাকায় ক্রেতা বিক্রেতারা ঝুকি নিয়ে চলাচল করেন ক্রেতা বিত্রেতারা। বুল্লাবাজাওে পুর্ব পাশে হাট বাহর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় মাল্টী পারপাস সেডটি অর্ধযুগ আগে নির্মান হলেও অদ্যবধি তা ব্যবসায়ীদের মধ্যে বরাদ্দ বা ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হযনি।ফলে সেট টি নিমার্নের পর থেকে মেজের ঢালাই ভেঙ্গে যাচ্ছে। শেডটি বর্তমানে অস্থায়ী ভাবে ফার্নিসার দোকারের কার্যক্রম চলছে।
বৃহত্তম এই বাজারটিতে নিদিষ্ট কোন স্লাটার বা কসাই খানা না থাকায় বাজাওে যত্র তত্রইস চলে পশু জাবাইয়ের কাজ।এতে করে জবাই কৃত পশুর রক্ত ও বজ্যথেকে দুঘর্ন্ধ ছড়িয়ে পরিবেশ হছ্চে দুশিত। কালাউক বাজারে ফিস সেড টির প্রবেশদ্বারের রাস্থাটি অপ্রস্থ ।তাছাড়া সেখানে ও নেই কোন গনশৌচাগার ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা।
এসব বাজার গুলো সমস্য নিরসনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট উর্ধতন মহলের সু দৃষ্টি কামনা করছে ভুক্তভোগী মহল।
এদিকে বুল্লাবাজারে চৌঃরাস্তায় আন্ডারা পাশ বা অভারপাশ নির্মানের দাবী দীর্ঘদিনের কিন্তুু অধ্যবধি তা নির্মানের কোন উদ্দ্যেগ পরিলক্ষিত হয়নি।

Share