Home / খেলাধুলা / মেসি জাদুতে আর্জেন্টিনার শেষ মুহূর্তের জয়

মেসি জাদুতে আর্জেন্টিনার শেষ মুহূর্তের জয়


Print Friendly, PDF & Email

শেষ মুহূর্তে গোল দেয়ার পর আর্জেন্টিনার মেসির উল্লাস

কে কাকে রুখে দিল? ইরান আর্জেন্টিনাকে নাকি আর্জেন্টিনা ইরানকে? এমন সব প্রশ্ন তুলে যখন গোলশূন্য ড্রয়ে ম্যাচ শেষ হওয়ার অপেক্ষা, তখনই জাদুকরী এক মুহূর্ত ভোজবাজির মতো পাল্টে দিল সব। আবারো আর্জেন্টিনার ত্রাতার ভূমিকায় আবির্ভাব লিওনেল মেসির।

ইনজুরি টাইমের প্রথম মিনিটে তাঁর বাম পায়ের জাদুতেই ইরানের সঙ্গে পয়েন্ট ভাগাভাগির লজ্জা এড়িয়ে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করল ‘আলবিসেলেস্তে’রা।

বেলো হরিজোন্তের এস্তাদিও মিনেইরোতে এর আগের ৯০ মিনিট আর্জেন্টিনা সমর্থকদের জন্য কেবল হতাশাই বরাদ্দ রেখেছিল।

দলের আক্রমণ ভাগের সামগ্রিক নিষ্ক্রিয়তায় কখনো কখনো মেসিকেও দেখিয়েছে বড্ড বেশি বিবর্ণ। কিন্তু এই না হলে কী আর তিনি মেসি! ম্যাচের গতিপথ বদলে দিতে তাঁর দুয়েকটা ঝলকই যথেষ্ট।

এফ গ্রুপে বসনিয়া-হার্জেগোভিনার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সেই ঝলকেই ম্যাচ বেরিয়ে এসেছিল। এবার ইরানের বিপক্ষেও ঘাম দিয়ে জ্বর ছাড়ার স্বস্তি এনে দিলেন সেই মেসিই।

ততক্ষণে অবশ্য কার্লোস কুইরোজের ইরান আর্জেন্টিনার সঙ্গে ড্র উদযাপনের প্রহরই গুনতে শুরু করে দিয়েছিল। কিন্তু শেষপর্যন্ত তারা স্বপ্নভঙ্গের বেদনায়ই ডুবল।

পাবলো সাবালেতার বাড়ানো বল ইরানের বক্সের বাইরে ডানদিকে খুঁজে পায় মেসির পা। বল পেতেই ইনসাইড কাটে রক্ষণ সামলাতে নীচে নেমে যাওয়া ইরানি স্ট্রাইকার রেজা ঘুশানেজাদকে এড়িয়ে জায়গা বানান প্রথমে।

ঘানার জালে দলের দ্বিতীয় গোলটি ঠেলে দিচ্ছেন জার্মানীর ক্লোজে

জার্মানীর জালে গোল দেয়ার পর আন্দ্রে আইয়ুর উল্লাস

গোলের পর জার্মানীর ক্লোজের উল্লাস

এরপর ২৫ গজ দূর থেকে মেসির জোরালো বাঁকানো শটে বল জালে জড়াতেই ভারমুক্তির আনন্দ আর্জেন্টিনার।

অথচ এদিন পুরো ম্যাচজুড়েই যেন আর্জেন্টিনার বিখ্যাত আক্রমণভাগ দলের ভার বহনে অক্ষমতাই দেখাচ্ছিল।

মেসি-আগুয়েরো-হিগুয়েইন-দি মারিয়াকে নিয়ে গড়া ‘ফ্যাব ফোর’ প্রথমার্ধে অল্পবিস্তর সুযোগই তৈরি করতে পেরেছে।

অথচ এদিন শুরুটা পছন্দের ৪-৩-৩ ফরমেশনেই করেছিল আলেহান্দ্রো সাবেইয়ার দল। বসনিয়া ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে এ ছকে খেলেই সফল হলেও এদিন ইরানের রক্ষণভাগে গিয়ে খেই হারাচ্ছিল।

দ্বিতীয়ার্ধে হিগুয়েইন-আগুয়েরোর জায়গায় রোদ্রিগো পালাসিও এবং এসেকিয়েল লাভেজ্জিকে নামালেও আক্রমণে প্রাণের সঞ্চার হয়নি।

উল্টো দ্বিতীয়ার্ধে ইরানই একাধিকবার আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক সের্হিয়ো রোমেরোর পরীক্ষা নিয়ে ছেড়েছে। এই আর্জেন্টিনা দলের সবচেয়ে দুর্বল দিক তাঁকেই ধরা হয়ে এসেছে এতদিন।

ফরাসি ক্লাব মোনাকোর হয়ে নিয়মিত খেলার সুযোগ না পাওয়া রোমেরোর প্রতিরোধেই ইনজুরি টাইমের আগপর্যন্ত আর্জেন্টিনা পিছিয়ে থাকেনি।

আশকান দেজাঘা ও ঘুশানেজাদকে বঞ্চিত করেছেন নিশ্চিত গোল থেকেও। ম্যাচ ড্র হলে তাই এটা বললেও বাড়াবাড়ি হত না যে ইরানকে রুখে দিল আর্জেন্টিনা!

 

ঘানার সাথে জার্মানীর ড্র

আর্জেন্টিনা ড্র করতে করতে জিতলেও ফোর্তালেজায় জি গ্রুপের ম্যাচে ফেভারিট জার্মানির সৌভাগ্য যে তাঁরা হার এড়িয়েছে। বদলি খেলোয়াড় হিসেবে নামা মিরোস্লাভ ক্লোজের রেকর্ড ছোঁয়া লক্ষ্যভেদে ঘানার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করেছে ইওয়াখিম ল্যোভের দল।

নাইজেরিয়ার একজন সমর্থক

ইরানের রেজা ঘুশানেজাদের একটি হামলা ঠেকিয়ে দিচ্ছেন আর্জেন্টাইন গোলকিপার রোমেরো

ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি রোনালদোর বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ১৫ গোলের রেকর্ডের মালিকানায় ভাগ বসানো ক্লোজে নামেন ম্যাচের ৬৯ মিনিটে। ৫১ মিনিটে থমাস মুলারের ক্রসে হেড করে জার্মানিকে এগিয়ে দেওয়া মারিও গোৎজের জায়গায়।

দলের ১-২ গোলে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় নেমে ২ মিনিটের মধ্যেই গোল শোধ করে দেন ক্লোজে। আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে জমজমাট হয়ে ওঠা ম্যাচে প্রথমে পিছিয়ে পড়লেও ম্যাচে ফিরতে সময় লাগেনি ‘ব্যাকস্টার’দের।

পিছিয়ে পড়ার তিন মিনিটের মধ্যে আন্দ্রে আইয়ুর গোলে সমতা ফেরায় তাঁরা। ৯ মিনিট পরে আসামোয়াহ জিয়ানের গোলে এগিয়ে যাওয়া ঘানাকে শেষপর্যন্ত জিততে দেননি ক্লোজে, যাঁর সামনে এখন বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ডটা শুধুই নিজের করে নেওয়ার হাতছানি।

বসনিয়াকে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডের সম্ভাবনা উজ্জ্বল নাইজেরিয়ার

ঘানার হতাশার দিনে বিশ্বকাপে আফ্রিকার আরেক প্রতিনিধি নাইজেরিয়া সাফল্য নিয়েই মাঠ ছেড়েছে।

কুইয়াবাতে এফ গ্রুপের ম্যাচে পিটার ওদেমউইঙ্গির গোলে বসনিয়াকে হারিয়েছে ‘সুপার ঈগল’রা। যে জয়ে এই গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় রাউন্ডে আর্জেন্টিনার সঙ্গী হওয়ার সম্ভাবনাও উজ্জ্বল করেছে তাঁরা। দুই ম্যাচে ৪ পয়েন্ট তাঁদের।

এমনকি ২৫ জুন আর্জেন্টিনার কাছে হেরেও শেষ ১৬-তে যাওয়ার সুযোগ আছে নাইজেরিয়ার। সেক্ষেত্রে দুই ম্যাচ হেরে বিদায় নেওয়া বসনিয়ার শেষ ম্যাচে ইরানের সঙ্গে ড্র করলেই হবে।

ইরান জিতলে গোল পার্থক্যের হিসাবে ঠিক হবে কারা যাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে।

Share